কোয়েস নিয়ে লাল-হলুদে নতুন জটিলতা আসলে কি? শুনলে হাসবেন।

Published by BADGEB Admin on

Last Updated 11:08 AM 30th May 2020 .

গতকাল থেকে নতুন বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের মধ্যে। এক নিউস পোর্টালের করা খবরে ছড়ায় বিভ্রান্তি। বহু সমর্থক পড়ে বুঝতেই পারেনি ঠিক কি বলতে চাইছে স্টেটমেন্টটায় কোয়েস গ্রুপে সিইও কৃষ্ণ সুরাজ মোরারজি। ফলে ছড়িয়ে পরে বিভ্রান্তি, সমর্থকদের মনে তৈরি হয় উৎকণ্ঠা, যার উপর ভিত্তি করে আজকে খবরও হয়ে যায় এক বাংলার পরিচিত সংবাদপত্রে।

ওয়েব পোর্টালে করা নিউস অনুযায়ী স্টেমেন্টটা ছিল, ‘We will conclude the termination of our partnership with QEBFC as of end May, and we will make sure there are no further liability on that front. We did announce that we were looking to dispose of Dependo. Unfortunately, the discussions were delayed due to COVID. But fortunately, COVID has actually seen a increased interest in the assets. We are hopeful that we will find a good outcome for this asset. In the meantime, we are keeping the burn here to less than INR 50 lakhs per month.’

ব্যাস, এতেই শুরু বিভ্রান্তি আর চিন্তা। এক এক সমর্থক এক এক ধরণের ব্যাখ্যা বের করলেন কাল সারাদিন ধরে। সবার মনে চিন্তার কালো মেঘ জমতে শুরু করে, তবে কি কোর্ট পর্যন্ত যাবে কোয়েস-ইস্টবেঙ্গল কর্তাদের দৈরথ। কারণ খবর বেরিয়ে পরে যে, কোয়েস নাকি শেয়ার বিক্রি করতে উদ্যত হয়েছে, তারা ইস্টবেঙ্গলের হাতে শেয়ার ফিরিয়ে না দিয়ে নিজেরা কোনো কোম্পানির কাছে বিক্রি করবে।

এবার আসি আসল ব্যাখ্যায় যেটা শুনলে হয়তো আপনারা হয় হাসবেন বা মাথা চাপড়াবেন যে কোথাকার কথা কিভাবে খবর করে সমর্থকদের মনের মধ্যে জটিলতা সৃষ্টি করা হয়।

আসল বিষয় হলো, ওই কোটেশনটা তোলা হয়েছে কোয়েস কর্পের কোনো মিটিং থেকে। যেখানে কোয়েসের সিইও নানান বিষয় আলোচনা করছিলেন। প্রথমে তিনি কোয়েস ইস্টবেঙ্গল প্রসঙ্গে বলেন ‘We will conclude the termination of our partnership with QEBFC as of end May, and we will make sure there are no further liability on that front.’ এবং তারপরে যখন কোয়েসের সিস্টার কনসার্ন Dependo নিয়ে কথা ওঠে তখন তিনি তাদের পার্টনারদের জানান ‘We did announce that we were looking to dispose of Dependo. Unfortunately, the discussions were delayed due to COVID. But fortunately, COVID has actually seen a increased interest in the assets. We are hopeful that we will find a good outcome for this asset. In the meantime, we are keeping the burn here to less than INR 50 lakhs per month.’

মানে দুটো পুরোপুরি আলাদা বিষয় করা মন্তব্য কে একসাথে জুড়ে প্রথমে আলোড়ন তৈরি করা হলো, তারপরে সেটা নিয়েই সামান্য বিবেচনা না করেই বাংলার ঘরে ঘরে পৌঁছে গেল সে খবর।


0 Comments

Leave a Reply

0 Shares
Copy link
Powered by Social Snap