বিচ্ছেদ খুব শীঘ্রই! এলো কোয়েসের পক্ষ থেকে বার্তা। স্বস্তির নিঃশ্বাস লাল-হলুদে।

Published by BADGEB Admin on

Last Updated 9:56 PM 12th June 2020 .

কোয়েস-ইস্টবেঙ্গল কর্মকর্তাদের বিবাদ নিয়ে যখন সরগরম ছিল কলকাতা ময়দান তখন আমরা লিখেছিলাম যে শুধু এক পক্ষ না, সমঝোতায় ব্যাস্ত দুই পক্ষই। অর্থাৎ, শুধু যে কোয়েস ইস্টবেঙ্গল কে ‘এনওসি’ দিচ্ছেনা এমনটা নয়, ইস্টবেঙ্গল কর্তারাও রাজি হচ্ছেন না এই বিচ্ছেদে যতক্ষন না লাল-হলুদের প্রাপ্য টাকা লাল-হলুদকে বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

তারপরে কেটে গেছে দিন সাতেক, আসেনি কোনো নতুন খবর কারণ এই পুরো পদ্ধতি শেষ করতে সময় লাগে। লাল-হলুদ কর্তারা এবং কোয়েস পক্ষ, দুই তরফই নিজেদের দিক থেকে চালিয়ে গেছেন কাজ, চুক্তিভঙ্গের প্রক্রিয়া থেমে থাকেনি। কিন্তু তার মাঝেই রোটতে থাকে নানান খবর, নানান গুজব, চিন্তা বাড়ে লাল-হলুদ সমর্থকদের। পুরো বিষয়টা বুঝতে পেরে এবার বার্তা এলো কোয়েসের পক্ষ থেকে।

কোয়েস কতৃপক্ষ সরাসরি জানালেন যে এই বিচ্ছেদ প্রক্রিয়ার কাজ চলছে দ্রুতগতিতেই এবং খুব শীঘ্রই এই বিষয় নিষ্পত্তি ঘটবে।

আসলে কলকাতা ময়দান বরাবরই গুজব আকৃষ্ট এবং গুজবে বিশ্বাসী। যে গল্প যত বেশি বিতর্ক সৃষ্টি করতে পারে সেই গল্পের প্রাধান্য তত বেশি মানুষের কাছে এবং এটাই খুব ভালোভাবে বুঝে গেছেন কিছু অনৈতিক সাংবাদিকরা। তাই হাতে গোনা কিছু সাংবাদিক বাদে বাকিরা মেতে থাকে ওই টিআরপির খেলায়, দুশ্চিন্তা বাড়ে সমর্থকদের।

আমাদের কাছে থাকা খবর অনুযায়ী আগামী ৫-৭ দিনের মধ্যে বিচ্ছেদ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হবে যেটা শুরু হয়েছিল পয়লা জুনে। এরপরে কোয়েস পাঠ মিটে গেলে, তারপরে নতুন কোম্পানির কাগজপত্র এবং কোয়েসের থেকে পাওয়া ‘এনওসি’ ফেডারেশনে জমা দেবে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। সেটা ফেডারেশন এপ্রুভাল পাওয়ার পরে ‘ইস্টবেঙ্গল ক্লাব প্রাইভেট লিমিটেড’ কোম্পানির চুক্তিপত্রে নতুন করে সই করবে সকল ফুটবলাররা যেটা ফেডারেশন গ্রহণ করবে। এবং সামনের মাসে আমরা নতুন ইনভেস্টর এবং বাকি সকল বিষয় জানতে পারবো।


0 Comments

Leave a Reply

0 Shares
Copy link
Powered by Social Snap