লাল-হলুদের ইনভেস্টর বিদায় নিচ্ছেন দুদিন পরেই…

Published by BADGEB Admin on

Last Updated 7:19 PM 13th May 2020 .

লাল-হলুদের বর্তমান ইনভেস্টর কোয়েস কর্প বিদায় নিচ্ছেন ১৫ই মেতেই। অন্তত প্লেয়ারদের কে পাঠানো কন্ট্রাক্ট টার্মিনেশনের চিঠিতে এমনটাই উল্লেখ করেছেন তারা।

তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে সকল প্লেয়ারকে, পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী ‘কোয়েস ইস্টবেঙ্গল’ কোম্পানি যেহেতু ৩১শে মে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, তার আগে কোয়েসের পক্ষ থেকে আর্থিক হিসাব থেকে শুরু করে সব রকমের কাগজপত্রের কাজ (NOC, TPO) শুরু করা হবে ১০ই মে থেকে এবং ১৫ মের মধ্যে সব রকমের কাজ তারা শেষ করে ‘কোয়েস ইস্টবেঙ্গল’ কোম্পানি বন্ধ করে দেবেন।

যদিও, কোম্পানি বন্ধ হয়ে গেলেও লাল-হলুদ কর্তারা দলের বিষয় পূর্ণ-স্বাধীনতা ১৫ই মে থেকেই পাবেন নাকি ৩১শে মে পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে সেটা এখনো পরিষ্কার নয়। প্লেয়ারদের পাঠানো মেলে উল্লেখ ছিল শুধুই যে কোয়েস ফুটবল টিমের কাজ কলকাতা শাখায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ১৫ই মেতে।

অন্যদিকে নয়া সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন ইস্টবেঙ্গল প্লেয়াররা। কোয়েসের পাঠানো মেলের মূল বিষয় নিয়ে আমরা বেশ কয়েকবার উল্লেখ করেছি পূর্বের প্রতিবেদনগুলোয়। এবার সমস্যা হচ্ছে, ওই মেল পেয়ে প্লেয়াররা যখন কি করবেন বুঝতে না পেরে হতবাক, তারা একটু সময় নিয়ে নিচ্ছিলেন নিজেদের মধ্যে তখনই ঘটে বিপত্তি। তাদের কে আবারও কোয়েস থেকে মেল পাঠিয়ে জানানো হয় তাদের সিদ্ধান্ত জানাতে ১০ই মের মধ্যে। কর্তৃপক্ষ দাবি করেন, ১০ তারিখের মধ্যে যদি প্লেয়াররা তাদের মতামত না জানান তাহলে তাদের বকেয়া টাকা, NOC, TPO এবং নানান বিষয় ভবিষ্যতে আর কোনো দায় থাকবে না কোয়েসের। সময়সীমা বেঁধে দেওয়ার পরে প্লেয়াররা দোটানায় পরে যান, এবং কোলাডো বাদে বাকি সব স্প্যানিশ প্লেয়ার তাদের সই করে দেন। তবে ভারতীয় ফুটবলাররা এখনো কেউ সই করেননি। কোয়েসের কথা অনুযায়ী ১৫ তারিখের পরে যেহেতু তারা তাদের কাজ বন্ধ করে দিচ্ছে, এইসব প্লেয়ারদের কি হবে, তাদের বকেয়াটাই বা তারা কবে পাবেন এবং লাল-হলুদে তাদের ভবিষৎই বা কি এগুলো সবই প্রশ্নচিহ্নের সামনে দাঁড়িয়ে।

আরো বিপদে সেই সব প্লেয়াররা যাদের সাথে দীর্ঘদিনের চুক্তি লাল-হলুদের। কারণ, সেই সকল প্লেয়ারদের সাথে এখনো লাল-হলুদ কর্তারা যোগাযোগ করেননি বা অদেও তাদের পরের মরশুমে রাখা হবে কিনা সেই নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেননি। তাই লাল-হলুদের স্বদেশী ব্রিগেড যে একদমই শান্তিতে নেই বলেই যায়। ১৫ তারিখের পরে যে নানান সমস্যা এবং বিতর্ক তৈরি হতে পারে এবং জল অনেকদূর গড়াবে সেটা এখন থেকেই ধরে নেওয়া হচ্ছে।


0 Comments

Leave a Reply

0 Shares
Copy link
Powered by Social Snap